ঝাড়খণ্ড

ঝাড়খণ্ড
झारखण्ड
ভারতের রাজ্য
বিহার ও ঝাড়খণ্ডের সরকারি প্রতীক
সীলমোহর
ভারতের মানচিত্রে ঝাড়খণ্ডের অবস্থান
ভারতের মানচিত্রে ঝাড়খণ্ডের অবস্থান
ঝাড়খণ্ডের মানচিত্র
ঝাড়খণ্ডের মানচিত্র
স্থানাঙ্ক (রাঁচি): ২৩°২১′ উত্তর ৮৫°২০′ পূর্ব / ২৩°২১′ উত্তর ৮৫°২০′ পূর্ব / 23.35; 85.33
দেশভারত
অঞ্চলপূর্ব ভারত
প্রতিষ্ঠা১৫ নভেম্বর ২০০০
রাজধানীরাঁচি
বৃহত্তম শহরজামশেদপুর
সরকার
 • রাজ্যপালদ্রৌপদী মুর্মু
 • মুখ্যমন্ত্রীরঘুবর দাস
 • বিধানসভাএককক্ষীয় (৮১ আসন)
 • লোকসভা কেন্দ্র১৪
 • হাইকোর্টঝাড়খণ্ড হাইকোর্ট
আয়তন
 • মোট৭৯৭১৪ কিমি (৩০৭৭৮ বর্গমাইল)
এলাকার ক্রম১৫শ
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৩,২৯,৮৮,১৩৪
 • ক্রম১৩শ
 • ঘনত্ব৪১৪/কিমি (১০৭০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলভা,প্র,স (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডIN-JH
মানব উন্নয়ন সূচকবৃদ্ধি ০.৫১৩ (medium)
মানব উন্নয়ন সূচক অনুসারে স্থান২৪শ (২০০৫)
সাক্ষরতা৬৭.৬% (২৫শ)
সরকারি ভাষা[১]হিন্দি, বাংলা[২] (দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে)
ওয়েবসাইটhttp://www.jharkhand.gov.in/

ঝাড়খণ্ড (ভোজপুরী: झारखंड ঝাড়্‌খান্ড্‌, আ-ধ্ব-ব: [dʒʰaːɽkʰəɳɖ]) পূর্ব ভারতের একটি রাজ্য। এর রাজধানীর নাম রাঁচী। এটি বিহারের দক্ষিণাংশ থেকে আলাদা হয়ে ২০০০ সালের ১৫ নভেম্বর গঠিত হয়েছিল।[৩] এই রাজ্য নানা খনিজ সম্পদে পূর্ণ ৷ ঝাড়খণ্ডের পর্যটনকেন্দ্রগুলির মধ্যে বিখ্যাত কয়েকটি হল হলুদপুকুর, রাজমহল, নেতারহাট, হাজারীবাগ, মন্দারগিরি ইত্যাদি৷

ইতিহাস

গৌতম কুমার বেরা সহ আন্যান লেখকদের মতে, [৪] মগধ সাম্রাজ্যের আগেও ঝাড়খন্ড নামে একটি স্বতন্ত্র ভূ-রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক স্থান ছিল। গৌতম কুমার বেরার বই'য়ে (পৃষ্ঠা ৩৩) হিন্দু মহাকাব্য ভবিশ্য পুরাণকেও উল্লেখ করে। আদিবাসী শাসকগণ, যাদের মধ্যে কেউ কেউ আজ পর্যন্ত উত্থিত হয় মুন্ডা রাজাস নামে পরিচিত, [৫][৬] যারা মূলত বড় খামারভূমিগুলির মালিকানার অধিকারী ছিল। [৭] প্রায় ৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মহাজনপদের যুগে, ভারতের ১৬ টি বৃহৎ রাজ্যের উত্থান দেখে সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশকে নিয়ন্ত্রণ করেছিল। সেই সময়ে ঝাড়খন্ড রাজ্য মগধ, অঙ্গ, বঙ্গ, কালিঙ্গ, কাশী এবং বাজাজি'র অংশ ছিল।

ব্রিটিশ শাসন

১৭৬৫ সালে এই অঞ্চলটি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির নিয়ন্ত্রণে আসে। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কর্তৃক ঝাড়খণ্ড অঞ্চলে নিপীড়ন ও উপনিবেশীকরণ স্থানীয় জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত জীবনযাপনে প্রতিবন্ধনে পরিণত হয়। ১৮৫৭ সালের ভারতে সিপাহী বিদ্রোহের প্রায় একশত বছর আগে, ঝাড়খন্ডের আদিবাসীরা ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে বারংবার বিদ্রোহের ধারাবাহিকতা শুরু করেছিল।

১৭৭১ থেকে ১৯০০ সাল পর্যন্ত আদিবাসীরা তাদের জমি রক্ষা করার জন্য ঝাড়খন্ডে জমিদারদের বিরুধে বিদ্রোহ করে। ১৭৭১ সালে রাজমহল পাহাড়ের পাহাড়িয়া নেতা তিলকা মাঞ্জি, জমিদার ও ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে প্রথমবার বিদ্রোহ শুরু করে। তিনি তাঁর লোকেদের অকৃতজ্ঞ জমিদারদের চাতুর্য থেকে মুক্ত করে তাদের পূর্বপুরুষদের জমি পুনরুদ্ধার করতে চেয়েছিলেন। ব্রিটিশ সরকার তার সৈন্য প্রেরণ করে এবং তিলকা মাঞ্জি এর বিদ্রোহ চূর্ণবিচূর্ণ করে। এর পরপরই ১৭৭৯ সালে, ভূমিজ উপজাতিরা মানভূমে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরে, এখন এই স্থানটি পশ্চিমবঙ্গের অন্তর্গত। এই পালামৌর উপজাতি গোষ্ঠীগুলি এই বিদ্রোহ অনুসরণ করে ছিল।

তারা ১৮০০ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিল। সম্ভবত সাত বছর পরে ১৮০৭ সালে, বারওয়েতে ওরাওঁরা'র বড় জমিদারকে হত্যা করে গুমলার পশ্চিমে শ্রীনগরে। খুব শীঘ্রই বিদ্রোহে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। উপজাতীয় বিদ্রোহগুলি মুন্ডা উপজাতিদের নিকটবর্তী প্রতিবেশী তামর এলাকায় পূর্ব দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ১৮১১ এবং ১৮১৩ সালে তারাও বিদ্রোহে জড়িয়ে পড়ে। সিংহভূম অস্থির হচ্ছিল এবং ১৮২০ সালে খোলা বিদ্রোহ শুরু হয় এবং জমিদার ও ব্রিটিশ সৈন্যদের সঙ্গে দুই বছরের জন্য যুদ্ধ করে। এটি লাকরা কুল রিশিংস ১৮২০-১৮২১ নামে পরিচিত। তারপর ১৮৩২ সালের মহান কোল রিসিংস বা বিদ্রোহী আসেন। এটি প্রথম বড় আদিবাসী বিপ্লব যা ঝাড়খন্ডে ব্রিটিশ প্রশাসনকে ব্যাপকভাবে বিপর্যস্ত করেছিল। জমিদারদের কাছ থেকে উপজাতীয় কৃষককে তাদের উত্তরাধিকারী সম্পত্তি থেকে উৎখাত করার চেষ্টা করার ফলে এটি ঘটেছিল। ১৮৫৫ সালে দুই ভাই সিধু ও কানহুর নেতৃত্বে সাঁওতাল বিদ্রোহ শুরু হয়।

তারপর বিরসা মুন্ডার বিদ্রোহ, [৮] ১৮৯৫ সালে ছড়িয়ে পড়ে এবং ১৯০০ সাল পর্যন্ত চলে যায়। খুনটি, তামর, সারওয়াদা ও বাঁদগাঁও এর মুন্ডা প্রধানত কেন্দ্রে বিদ্রোহের ফলে, তার সমর্থকরা লোহারদাগার ওঁরাও, সিসাই ও ব্যারওয়ে অঞ্চল থেকে আকৃষ্ট হন।

স্বাধীনতা-উত্তর সময়

Other Languages
Acèh: Jharkhand
አማርኛ: ጃርኸንድ
العربية: جهارخاند
অসমীয়া: ঝাড়খণ্ড
asturianu: Jharkhand
تۆرکجه: جارکند
беларуская: Джхаркханд
беларуская (тарашкевіца)‎: Джгаркганд
български: Джаркханд
भोजपुरी: झारखंड
བོད་ཡིག: རྗར་ཁན་ཌི།
বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী: ঝাড়খন্ড
brezhoneg: Jharkhand
català: Jharkhand
нохчийн: Джаркханд
čeština: Džhárkhand
Cymraeg: Jharkhand
dansk: Jharkhand
Deutsch: Jharkhand
डोटेली: झारखण्ड
ދިވެހިބަސް: ޖަރްކަންދު
Ελληνικά: Τζαρκάντ
English: Jharkhand
Esperanto: Ĝarkhando
español: Jharkhand
eesti: Jharkhand
euskara: Jharkhand
فارسی: جارکند
suomi: Jharkhand
français: Jharkhand
Nordfriisk: Jharkhand
Gaeilge: Jharkhand
गोंयची कोंकणी / Gõychi Konknni: Jharkhandd
ગુજરાતી: ઝારખંડ
עברית: ג'הרקאנד
हिन्दी: झारखण्ड
Fiji Hindi: Jharkhand
hrvatski: Jharkhand
hornjoserbsce: Dźarkand
magyar: Dzshárkhand
Bahasa Indonesia: Jharkhand
íslenska: Jharkhand
italiano: Jharkhand
ქართული: ჯარხანდი
ಕನ್ನಡ: ಝಾರ್ಖಂಡ್
한국어: 자르칸드 주
कॉशुर / کٲشُر: جھارکھنڈ
Latina: Jharakhanda
لۊری شومالی: جارکأند
lietuvių: Džharkhandas
latviešu: Džhārkhanda
मैथिली: झारखण्ड
македонски: Џарканд
മലയാളം: ഝാർഖണ്ഡ്‌
монгол: Жарканд
मराठी: झारखंड
Bahasa Melayu: Jharkhand
नेपाली: झारखण्ड
नेपाल भाषा: झारखण्ड
Nederlands: Jharkhand
norsk nynorsk: Jharkhand
norsk: Jharkhand
occitan: Jharkhand
ଓଡ଼ିଆ: ଝାଡ଼ଖଣ୍ଡ
ਪੰਜਾਬੀ: ਝਾਰਖੰਡ
Kapampangan: Jharkhand
polski: Jharkhand
پنجابی: جھاڑکھنڈ
پښتو: جارکنډ
português: Jharkhand
română: Jharkhand
русский: Джаркханд
संस्कृतम्: झारखण्डराज्यम्
Scots: Jharkhand
srpskohrvatski / српскохрватски: Jharkhand
Simple English: Jharkhand
slovenčina: Džhárkhand
српски / srpski: Џарканд
svenska: Jharkhand
Kiswahili: Jharkhand
తెలుగు: జార్ఖండ్
тоҷикӣ: Ҷарханд
Tagalog: Jharkhand
Türkçe: Carkhand
українська: Джхаркханд
vèneto: Jharkhand
Tiếng Việt: Jharkhand
Winaray: Jharkhand
მარგალური: ჯარხანდი
ייִדיש: דזשארקהאנד
Yorùbá: Jharkhand
中文: 贾坎德邦
文言: 賈坎德邦
Bân-lâm-gú: Jharkhand