আতাকামা লার্জ মিলিমিটার অ্যারে

আতাকামা লার্জ মিলিমিটার অ্যারে
আতাকামা লার্জ মিলিমিটার অ্যারে লোগো.jpg
আলমা লোগো
তথ্য
প্রতিষ্ঠানবহুদেশীয়
অবস্থানকাইনান্তোর উপত্যকা
আতাকামা মরুভূমি, চিলি
স্থানাঙ্ক২৩°০১′৯.৪২″ দক্ষিণ ৬৭°৪৫′১১.৪৪″ পশ্চিম / ২৩°০১′৯.৪২″ দক্ষিণ ৬৭°৪৫′১১.৪৪″ পশ্চিম / Official NAOJ ALMA site
Commons page উইকিমিডিয়া কমন্স সম্পর্কে মিডিয়া

আতাকামা লার্জ মিলিমিটার অ্যারে (ইংরেজি: Atacama Large Millimeter Array) বা আলমা চিলির আতাকামা মরুভূমির কাইনান্তোর (ইংরেজি: Chajnantor) উপত্যকায় স্থাপিত একটি বেতার দুরবিন যা দিয়ে বিভিন্ন জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তু থেকে আসা মিলিমিটার ও সাবমিলিমিটার তরঙ্গদৈর্ঘ্যের বিকিরণ শনাক্ত করা সম্ভব। ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, পূর্ব এশিয়া এবং স্বাগতিক দেশ চিলির আন্তর্জাতিক অংশীদারিত্বে স্থাপিত আতাকামা লার্জ মিলিমিটার এ্যারে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ ও গুরুত্বপূ্র্ণ এক মহাকাশ বিদ্যা –প্রকল্প। চিলির আতাকামা মরুভূমির ৫ কিমি উচ্চতায় স্থাপিত কাইনান্তোর উপত্যকায় প্রতিষ্ঠিত এই বেতার দূরবীনে রয়েছে ৬৬ টি অতি সূক্ষ রিজোলিউশানের এন্টেনা যার সাহায্যে একসাথে ব্যতিচারমিতিক (ইন্টারফেরোমেট্রি) প্রক্রিয়ায় একটি বস্তু পর্যবেক্ষণ করা যাবে। অধিকাংশ দুরবিনের এন্টেনার ব্যাসই ১২ মিটার, তবে কিছু ৭ মিটার ব্যাসের এন্টেনাও রয়েছে।[১] পূর্বকালীন মহাকাশের বিভিন্ন নক্ষত্র-জন্মের বিস্তৃত বিবরণ সরবরাহ করবে এই আতাকামা লার্জ মিলিমিটার এ্যারে। মহাজাগতিক নিয়মে মহাকাশের যে সকল নক্ষত্রেরা হারিয়ে গেছে, তাদের জন্ম-বিস্তৃতির বিস্তারিত প্রতিমূর্তি তুলে ধরাই আতাকামা লার্জ মিলিমিটার এ্যারের মূল লক্ষ্য।

২০১১ সালের দ্বীতিয়ার্ধে আতাকামা লার্জ মিলিমিটার এ্যারে তার বৈজ্ঞানিক পর্যবেক্ষণ শুরু করে এবং ৩ রা মার্চ ,২০১১ প্রথমবারের মতো সংবাদ-মাধ্যমে আতাকামা লার্জ মিলিমিটার এ্যারের পর্যবেক্ষণের প্রতিচ্ছবি প্রকাশিত হয়। মার্চ,২০১৩ এই বেতার দুরবীন তার সম্পূর্ণ কার্যক্রম শুরু করে। [২][৩]

Other Languages
slovenčina: ALMA
српски / srpski: Atacama Large Millimeter Array